পতিত দেহ, একটু উষ্ণতা এবং আগামীর গল্প…


পতিত দেহ, একটু উষ্ণতা এবং আগামীর গল্প…


জাফর সাদিক।। ট্রান্সসাইবেরিয়ান নির্জন লোকালয়। ভবঘুরে যুবক বসে বিড়ি ফুঁকছে। লোকসমাগম নেই বললেই চলে। কনকনে হাওয়া বইছে। যথেষ্ট শীতবস্ত্র কেনার সামর্থ্য নেই যুবকের। অনেকটা বিড়ি জ্বালিয়েই শীত নিবারণের অবস্থা। ক্রমেই হাওয়ার গতি আর শীতলতা বাড়তেই লাগল। অকস্মাত তা তুষার ঝড়ে পরিণত হলো। যুবক আশ্রয়ের জন্য দু’একটি কুটীরে কড়া নাড়লো।
গৃহস্বামীরা পারিবারিক নিরাপত্তার কথা ভেবে তাকে ফিরিয়ে দিলো। অগত্যা পূর্বের জায়গায় বসে বিড়ি ফুঁকছিলো আর ভয়ানকভাবে কাঁপছিলো। এটাই বুঝি মৃত্যুর প্রহর গোনা শুরু হলো। অদূরেই জীর্ণ ওভারকোট পড়া এক বেশ্যা ব্লাঙ্কেট জড়িয়ে খদ্দেরের অপেক্ষায়।
সহসা তার দৃষ্টি পড়লো যুবকের দিকে। ইশারায় নিজের কাছে ডেকে নিলেন। ইতঃস্ততভাবে এগিয়ে গেল যুবক। অতঃপর সেই নারী তাকে একই কম্বলের নীচে আশ্রয় দিলেন।
তুষার ঝড় থেমে গেছে কিছুক্ষণ হলো। কিন্তু মানব সভ্যতা মরেছে কবে জানা যায়নি এখনও। আজ হয়ত মনুষ্যত্বের কোনো নতুন সংস্করণ জন্ম নিলো পতিত দেহ অার কম্বলের যৌথ উত্তাপ থেকে।
যুবকের বিড়ি ফুরিয়ে গেছে। কোনো ধোয়া নেই। চোখেতে জমেছে জল। নতুন জীবনের জল। হয়ত নতুন সভ্যতার নির্ণায়ক।।



>