মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের শেষ বিতর্ক, শান্ত মেজাজে একে অপরকে সামলালেন ট্রাম্প ও বাইডেন


মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের শেষ বিতর্ক, শান্ত মেজাজে একে অপরকে সামলালেন ট্রাম্প ও বাইডেন


শেকড় ডেস্ক

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে শেষ বিতর্কে ঠান্ডা কথার লড়াইয়ে নেমেছিলেন রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন। জো বাইডেনের ও তার পরিবারের দুর্নীতির কথা উল্লেখ করেন ট্রাম্প, পক্ষান্তরে বাইডেনের আক্রমণ ছিল করোনা মোকাবেলায় ট্রাম্পের ব্যর্থতা নিয়ে।

নির্বাচনের ঠিক ১২ দিন আগে শেষ বিতর্কে মুখোমুখি হয়ে আবারও করোনা নিয়েই বিতণ্ডা হয়েছে দুই মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর। তবে দুজনের মেজাজ ছিল ঠান্ডা। এবারের বিতর্কের শুরুতেও ছিল করোনাভাইরাস প্রসঙ্গ। ডোনাল্ড ট্রাম্পের করোনা মোকাবিলার ব্যর্থতা নিয়ে এবারও তাকে ধুয়ে দেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন।

জো বাইডেন ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন ট্রাম্প। কিন্তু বাইডেন করোনা নিয়ে আক্রমণ করতেই থাকেন। তিনি বলেন, ‘এতগুলো মৃত্যুর জন্য যে প্রেসিডেন্ট দায়ী তার আবারও প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতায় থাকা উচিত নয়। ট্রাম্প আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেন, ‘ভয়াবহ পরিস্থিতি আমরা পার করেছি।’

এবার বিতণ্ডা হলেও প্রথম বিতর্কের মতো বিশৃঙ্খল ছিল না। দুজনেই অনেকটা শান্ত আর ঠান্ডা মেজাজে একে অপরকে আক্রমণ করেছেন। সময় নিয়ে কথা শুনেছেন একে অপরের। বাধাহীনভাবে কথা বলতে এবারের বিতর্তে ‘সুইচ অফ’ করে অন্য প্রার্থীর মাইক্রোফোন বন্ধ রাখা হবে বলে আগেই জানিয়েছিলেন আয়োজকরা।

সাধারণত মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের মধ্যে তিনটি বিতর্ক হয়। কিন্ত ট্রাম্প করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় দুই প্রার্থীর মধ্যে দ্বিতীয় বিতর্কটি বাতিল হয়েছিল। চূড়ান্ত বিতর্ক সঞ্চালনা করেন এনবিসি নিউজের হোয়াইট প্রতিনিধি ক্রিস্টেন ওয়েকার।

স্থানীয় সময় ২২ অক্টোবর রাত ৯টায় টেনেসি অঙ্গরাজ্যের নাশভিলে নগরীর বেলমন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে মুখোমুখি হন দুই প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেন। ৯০ মিনিটের এ বিতর্কে করোনা আমেরিকান ফ্যামিলি, বর্ণ বিদ্বেষ, জলবায়ু পরিবর্তন, জাতীয় নিরাপত্তা এবং নেতৃত্ব-এ ছয়টি বিষয় নির্ধারণ করা হয়।

বর্ণবাদ প্রসঙ্গ তোলা হলে বাইডেন এর নির্মূলে সব ব্যবস্থা নেবেন জানিয়ে ট্রাম্পকে আক্রমণ করে বলেন, আধুনিক যুগের প্রেসিডেন্টদের মধ্যে সবচেয়ে বর্ণবাদী প্রেসিডেন্ট হলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্প উল্টো দাবি করে বলেন, এই কক্ষে এখন যারা অবস্থান করছেন তাদের মধ্যে সব কম বর্ণবাদী মানুষটি হলেন তিনি।



>