সাইকেলে চেপে হাজার তরুণ


সাইকেলে চেপে হাজার তরুণ


বজিয় দবিসে চলন্ত সাইকলেরে র্দীঘতম একক সাররি বশ্বি রর্কেড গড়তে শামলি হয়ছেলিনে এই তরুণরো। ছব:ি আশরাফুল আলমবজিয় দবিসে চলন্ত সাইকলেরে র্দীঘতম একক সাররি বশ্বি রর্কেড গড়তে শামলি হয়ছেলিনে এই তরুণরো। ছব:ি আশরাফুল আলমবজিয়রে দনিে দশেরে নামটা আরও উজ্জ্বল করতইে সদেনিরে আয়োজন। তরুণদরে সে উদ্যোগে শামলি হয়ছেলিনে স্কুলপড়ুয়া থকেে বশ্বিবদ্যিালয়রে শক্ষিকও। সবার একটাই লক্ষ্য—চলন্ত সাইকলেরে র্দীঘতম একক সাররি বশ্বি রর্কেড নজিদেরে করে নওেয়া। ১৬ ডসিম্বের সকাল গড়াতইে ‘৩০০ ফুট’ নামে পরচিতি রাজধানীর র্পূবাচল এক্সপ্রসে মহাসড়কে সমবতে হয়ছেলিনে কয়কে শ সাইক্লস্টি। তবে সবাই অংশ নওেয়ার সুযোগ পানন।ি কারণ, আয়োজক বডিসিাইক্লস্টিস নবিন্ধতিদরে মধ্য থকেে কয়কে ধাপে নর্বিাচন করছেলি ১ হাজার ২০০ জনক।ে যদওি র্পযবক্ষেকরো জানয়িছেনে, ১৪ জন বাদ পড়ায় প্রাথমকিভাবে ১ হাজার ১৮৬ জন মলিে রর্কেডটি হয়ছে।ে তবে অপক্ষো এখনো ফুরায়ন।ি কারণ, গনিসে ওর্য়াল্ড রর্কেডস র্কতৃপক্ষরে আনুষ্ঠানকি স্বীকৃতি মলিতে সময় লাগবে আরও কছিুদনি। এ আয়ােজনে রর্কেডরে চয়েওে বড় হয়ে বাজে যনে লাল-সবুজরে সুর, ওড়ে তারুণ্যরে বজিয় পতাকা। সাইক্লস্টিদরে বড় এই আয়োজন শষে হয়ছেে নানা ঘটনায়। কউে হয়তাে অপ্রত্যাশতিভাবে বাদ পড়ছেনে, অপক্ষেমাণ তালকিার অনকেে যুক্ত হয়ছেনে শষে মুর্হূত।ে কউে অংশ নতিে এসছেনে র্দীঘ পথ মাড়য়ি,ে কউে আবার শুধুই র্দশক হয়ে শামলি হয়ছেনে সখোন।ে সাইক্লস্টিদরে বড় আয়ােজনরে কছিু টুকরো গল্প নয়িে এই প্রতবিদেন।

অনকে উৎসুক সাইক্লস্টিও হাজরি হয়ছেলিনে সখোননেৃত্যশল্পিী মুনমুন আহমদেসাইকলেে নাচরে শল্পিী
নৃত্যশল্পিী মুনমুন আহমদে কখনো র্ভতি পরীক্ষায় অপক্ষেমাণ তালকিায় ছলিনে কি না জানা হয়ন।ি তবে চলন্ত সাইকলেরে র্দীঘতম একক সাররি বশ্বি রর্কেড গড়তে গয়িে তাঁর ঠাঁই হয়ছেলি অপক্ষেমাণ তালকিায়। মুনমুন আহমদে বলনে, ‘আমি আগে থকেে নবিন্ধন করনি।ি তাই আয়োজকরো জানালনে, নবিন্ধতি কউে না এলে বা বাদ পড়লে তবইে সুযোগ পাব।’
দুপুররে বরেসকি রোদে প্রায় দড়ে ঘণ্টা অপক্ষো করার পর টকিটি পান নৃত্যশল্পিী মুনমুন আহমদে। ‘আমি ছোটবলো থকেইে সাইকলে চালাই। প্রতদিনি বাসা থকেে কাছপেঠিে যতেে সাইকলেইে বরেয়িে পড়।ি এ ছাড়া আয়োজকদরে অন্য অনকে আয়োজনে নয়িমতি অংশ নয়িছে,ি সটো তাঁরা জাননে। এ জন্য আমার ওপর তাঁদরে ভরসা ছলি।’ বলছলিনে মুনমুন আহমদে।
এমন রর্কেড গড়ার আয়োজনে অংশ নয়িে দারুণ আনন্দতি তনি।ি মুনমুন আহমদে সে কথা জানয়িছেনে ফসেবুকওে, ‘নতুন ইতহিাস সৃষ্টি করছে,ি বশ্বিরে কাছে বাংলাদশেরে নাম উঁচু করতে পরেে আমি র্গবতি।’
পরবিার নয়িে হাজরি
পশোয় তনিি একটি বসেরকারি ব্যাংকরে র্কমর্কতা। চট্টগ্রামইে থাকনে। সখোনে তনিি সাইকলেচালকদরে একটি সংগঠনরে সঙ্গওে যুক্ত। সদেনি দশেরে বভিন্নি প্রান্ত থকেে এমন বশে কয়কেজন সাইক্লস্টি যোগ দয়িছেলিনে। তবে চট্টগ্রামরে মজবিুর রহমান তাঁদরে থকেে একটু আলাদা ছলিনে। কারণ, তনিি একা আসনেন।ি বশ্বি রর্কেডরে অংশ করতে সঙ্গে এনছেলিনে পরবিাররে অন্য সদস্যদরে। মজবিুর রহমান বলনে, ‘বশ্বি রর্কেডরে মতো এত বড় একটা আয়োজনে সবাইকে অংশ করতইে বউ-বাচ্চাসহ চলে আসছ।ি’
তাতে কী!
ঢাকার দোহার থকেে এসছেলিনে ফারুক আহমদে। সকালে অংশ নয়িছেনে বডিসিাইক্লস্টিরে নয়িমতি আয়োজন বজিয়র্ যা লতি।ে সখোনইে প্রথম জনেছেনে গনিসে বুকে নাম লখোনোর এ উদ্যোগ সর্ম্পক।ে এমন সুযোগ কি আর ছাড়া যায়? সোজা ছুটে গয়িছেনে বসুন্ধরা আবাসকি এলাকায়। কন্তিু সখোনে গয়িে হতাশ হয়ছেনে ফারুক আহমদে। কারণ, আয়োজকরো তাঁকে জানান, এখানে যাঁরা অংশ নচ্ছিনে, তাঁরা আগইে নবিন্ধন করছেনে। শুধু নবিন্ধনই নয়, কয়কে ধাপ পরীক্ষা দয়িইে তবে সুযোগ পয়েছেনে। আয়োজকদরে কথা শুনে আশ্বস্ত হয়ছেনে ঠকিই, কন্তিু মনে ছলি দুঃখবোধ। ফারুক আহমদে বলনে, ‘ফসেবুকে আমি নয়িমতি নই। কোনো সাইক্লস্টি সংগঠনরে সঙ্গওে যুক্ত নই। তাই নবিন্ধনরে বষিয়টা সর্ম্পকে আগে জানা ছলি না।’ সদেনি অংশ নতিে না পারার দুঃখ থাকলওে রর্কেড কৃতত্বি নয়িে দারুণ আশাবাদী, ‘অংশ নওেয়ার সুযোগ পাইন,ি তাতে কী! আশা করি রর্কেডটা আমাদরে হোক।’
ক্রটিকিালংিকরে প্রাথমকি চকিৎি​সাসবোপাশে আছি র্দুঘটনায়
বড় আয়োজন, র্দুঘটনার আশঙ্কাও অমূলক নয়। তাই ব্যবস্থা ছলি প্রাথমকি চকিৎিসাসবোর। র্দুঘটনায় আহত সাইক্লস্টিদরে জরুরি প্রাথমকি চকিৎিসার কাজটি করছেনে স্বচ্ছোসবেী প্রতষ্ঠিান ক্রটিকিালংিকরে সদস্যরা। প্রতষ্ঠিানটরি র্কমসূচি সমন্বয়ক রাহাত হোসনে বলনে, ‘অ্যাম্বুলন্সেসহ আমাদরে বশি জনরে একটি দল সখোনে ছলি।’
সয়ৈদ শাহরয়িার ও রাহনুমা মমতাজ। ছব:ি সংগৃহীতসাইক্লস্টি দম্পতি
সাইকলে চালাতে গয়িে তাঁদরে বন্ধুত্ব। একসময় সইে বন্ধুত্বরে সীমানা ছাড়য়িে গাঁটছড়াও বঁেধছেনে দুজন।ে এই দম্পতরি নাম রাহনুমা মমতাজ ও সয়ৈদ শাহরয়িার। দুজনই বসেরকারি প্রতষ্ঠিানরে চাকুর।ে অন্য অনকেরে মতো সদেনি তাঁরাও অংশ নয়িছেলিনে বশ্বি রর্কেডরে অংশীদার হত।ে রাহনুমা মমতাজ বলনে, ‘বডিসিাইক্লস্টিরে সঙ্গে আমি ২০১২ সাল থকেে জড়তি। তাই চষ্টো করি সংগঠনরে যকেোনো আয়োজনে থাকত।ে’ নারী এই সাইক্লস্টি জানালনে, তনিি একসময় বডিসিাইক্লস্টি গ্রুপরে অ্যাকক্টভিস্টি ছলিনে। পশোগত কারণে এখন আর তমেন সময় দতিে পারনে না। তবে বশ্বি রর্কেড গড়ার সারতিে শামলি হবনে না, তা কি হয়!
সাইকলে সাররি ১ ও ১২০০ নম্বর অংশগ্রহণকারীনম্বর ওয়ান
নয় মাস আগে থকেইে শুরু হয়ছেলি জাহদিুল হকরে ক্ষণ গণনা। সে অপক্ষোর শষে হলাে ১৬ ডসিম্বের। কারণ, নয় মাস আগইে শুরু হয়ছেলি বশ্বি রর্কেড গড়ার তােড়জােড়। অন্য বষিয়গুলাে গােছগাছ চললওে র্দীঘতম সাররি ‘নতো’ হসিবেে ঠকি হয়ছেলি জাহদিুল হকরে নাম। তনিি একজন শৗেখনি সাইক্লস্টি। বডিসিাইক্লস্টিরে সঙ্গে যুক্ত হয়ছেনে ২০১১ সাল।ে এই সংগঠন থকেে প্রতি শুক্রবার ‘বাইক ফ্রাইড’ে নামে সাইক্লংি আয়ােজন করা হয়। সটোর নতেৃত্ব দনে তনি।ি এই অভজ্ঞিতার জন্যই চলে আসে তাঁর নাম। জাহদিুল হক বলনে, ‘কাজটি খুবই কঠনি ছলি। পাঁচ-ছয় বছর ধরে সাইক্লংি কর।ি কন্তিু কখনাে ভয় কাজ করনে।ি সদেনি মাঝমেধ্যইে একধরনরে শঙ্কা কাজ করছলি।’ তবে সব ভয়-শঙ্কা উড়য়িে দয়িে ১ হাজার ১৮৫ জন সাইক্লস্টিকে নয়িে ইতহিাসরে অংশ হয়ছেনে তনি।



>